‘গ্রামের মহিলা গরিব হলে সবাই তার স্বামী’

যোগফল ডেস্ক

08 May, 2020 08:51pm


‘গ্রামের মহিলা গরিব হলে সবাই তার স্বামী’
ডক্টর এ কে আবদুল মোমেন

বাংলাদেশে বাকস্বাধীনতা ও সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা পুরোপুরি বহাল আছে বলে দাবি করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডক্টর এ কে আবদুল মোমেন৷ মন্ত্রী বলেন, ‘‘বিদেশিরা উদ্দেশ্যমূলকভাবে বাক স্বাধীনতা ও সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছে৷’’

করোনার সময়ে বাকস্বাধীনতা, সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতা ও ডিজিটাল আইনের অপপ্রয়োগ নিয়ে সাত দেশের রাষ্ট্রদূত, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রিন্সিপ্যিাল ডেপুটি অ্যাসিস্যান্ট সেক্রেটারি ও বাংলাদেশের সম্পাদক পরিষদের উদ্বেগের প্রেক্ষাপটে তিনি এসব কথা বলেন৷

শুক্রবার [৮ মে ২০২০] তিনি আরও বলেন, ‘‘যারা বাকস্বাধীনতা ও সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার কথা বলেন তাদের দেশে কি এসব আছে? অ্যামেরিকায়ও তো বাকস্বাধীনতা নাই৷ তাদের দেশ নিয়ে সেই দেশে কোনো বিদেশি রাষ্ট্রদূত এসব কথা বলতে পারবে?’’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডক্টর এ কে আবদুল মোমেন বলেন, ‘‘ওইসব দেশের উচিত কোভিড ১৯ নিয়ে আগামী ছয় মাসে তারা যে সহায়তা করতে পারেন, তা নিয়ে কথা বলা৷ মধ্যপ্রাচ্যে আমাদের যারা আছেন, তাদের কিভাবে সহায়তা করবেন এগুলো নিয়ে তারা প্রোগ্রাম করলে আমরা কথা বলতে পারি৷ ওই লোকগুলো যাতে না খেয়ে না মরে৷’’

তিনি বলেন, ‘‘অ্যামেরিকার কথা বলছেন, ওইসব দেশেও তো বাকস্বাধীনতা নাই৷ আপনি প্রশ্ন করলে ওরা তো আপনাকে কাট করে দেবে৷ ওরা হয়ত টিভি স্টেশন বন্ধ করবে না৷ কিন্তু যা চার্জ করবে, তাতে আপনি টিকে থাকতে পারবেন না৷’’

তার মতে, ‘‘বাংলাদেশে বাকস্বাধীনতা ক্ষুন্ন হয়নি৷ সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা ক্ষুন্ন হওয়ার মতো কোনও ঘটনা ঘটেনি৷ বাংলাদেশ মুক্তভাবে কথা বলার একটি দেশ৷ এখানে যা খুশি লেখা যায়৷ এখানে মিথ্যা কথা বললেও কোনও শাস্তি হয় না৷ যারা বিবৃতি দিচ্ছেন. তাদের অন্য কোনও উদ্দেশ্য আছে৷’’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ‘‘বিদেশি রাষ্ট্রগুলো যদি আমাদের প্রবাসীদের নিয়ে এবং গার্মেন্টস খাত নিয়ে কোনও সহযোগিতা করতে চান তাহলে, তাদের সাথে আলোচনা করতে রাজি আছি৷ আর বাংলাদেশ নিয়ে কোনও উদ্বেগের বিষয় থাকলে তারা ডিপ্লোম্যাটিক প্রটোকলের মাধ্যমে জানাতে পারেন৷ এভাবে জটলা করে পাবলিক স্টেটমেন্ট দেওয়া কোনও নিয়মের মধ্যে পড়ে না৷ তারা কেন এটা করছেন তা অনুসন্ধান করে দেখার আহ্বান জানাচ্ছি৷’’

তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘‘গ্রামের মহিলা গরিব হলে সবাই তার স্বামী৷ আমাদের হয়েছে সেই অবস্থা৷ অ্যামেরিকার রাষ্ট্রদূত বলতে পারবে অ্যামেরিকায় বাকস্বাধীনতা নেই? তাকে তো দেশ থেকে বের করে দেবে৷ আপনারা (সাংবাদিকরা) তাদের কথা প্রচার করেন বলেই তারা বলে৷ প্রচার বন্ধ করে দেন, দেখবেন আর বলবে না৷ ‘নন ইস্যু’কে ইস্যু করা হচ্ছে৷ এটা করবেন না৷’’ সূত্র : ডয়চে ভেলে।


বিভাগ : উপজীব্য


এই বিভাগের আরও