গাজীপুরে ডাকাতি ও ছিনতাইপ্রবণ ২৮টি এলাকা

যোগফল প্রতিবেদক

15 Jun, 2020 08:03am


গাজীপুরে ডাকাতি ও ছিনতাইপ্রবণ ২৮টি এলাকা
ছবি : সংগৃহীত

গাজীপুরে আশঙ্কাজনক হারে ছিনতাই ও ডাকাতির ঘটনা বাড়ছে। গত দুই বছরে গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকায় ছিনতাইকারীদের হাতে প্রাণ হারিয়েছেন বিভিন্ন শ্রেণি পেশার ছয় জন। বিশেষ করে গাজীপুরে হত্যার পর ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা ছিনতাইয়ের ঘটনা বেড়েছে। দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ বলছে, ‘গত দুই বছরেই গাজীপুরে ছিনতাইকারীদের হাতে খুন হয়েছেন ৫জন ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চালকসহ সর্বমোট ৬জন। এ ছাড়া ছিনতাইকারী ও ডাকাতদের হামলায় রক্তাক্ত যখম হয়েছেন অন্তত ২০জন।

যোগফল অনুসন্ধান বলছে, গাজীপুর মহানগরীর চান্দনা চৌরাস্তার পশ্চিমে কলেজপাড়া এলাকা, গাছা থানাধীন ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক সংলগ্ন শরিফপুর, মালেকেরবাড়ী এবং বাসন থানাধীন মোগরখাল বিজয় সড়ক, মেট্রো সদর থানাধীন তিনসড়ক-যোগীতলা সড়ক, চাপুলিয়া টেকপাড়া, কলেরবাজার, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের মাস্টারবাড়ী-জ্যোস্না পাম্প থেকে রাজেন্দ্রপুর চৌরাস্তা, রাজেন্দ্রপুর-কাপাসিয়া সড়কের হালডোবা এলাকায় চুরি, ছিনতাই ও ডাকাতির ঘটনা ঘটছে। 

এ ছাড়া টঙ্গী জোনের বাঁশপট্টি, বাটা ফায়ার সার্ভিস গলি, এরশাদ নগর দিঘীরপাড়, খা পাড়া দশ তলা, নিমতলী ব্রিজ, টঙ্গী রেলব্রিজ, কলেজগেট, কামারপাড়া, মিলগেট, বনমালা রোড, হোসেন মার্কেট ও সাতাইশ খৈরতুল ছিনতাইপ্রবণ এলাকা। গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া উপজেলার নতুন বাজার, সিংহশ্রী ইউনিয়নের সোহাগপুর এলাকায় চুরি, ছিনতাই ও ডাকাতির ঘটনা ঘটছে। কালীগঞ্জ উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের নারগানা এলাকা, নাগরী ইউনিয়নের উলুখোলা এলাকায় ছিনতাই ও দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটছে। এ ছাড়া ওই উপজেলার কালীগঞ্জ-ঘোড়াশাল বাইপাস সড়কের প্রায় ৩ কিলোমিটার এলাকা ছিনতাই ও ডাকাতিপ্রবণ এলাকা হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চলতি মাসের ১৩ অক্টোবর গাজীপুর মেট্রো সদর থানাধীন চাপুলিয়া টেকপাড়া এলাকায় জাফর হোসেন নামে এক ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চালক খুন হন।  গত ৮ মে কালীগঞ্জর মোড়লবাড়ী বাইপাস সড়কে শাহিন নামে আরেক অটোরিকশা চালক খুন হন। গত ১৬ জুলাই কালীগঞ্জের রামচন্দ্রপুর তেতুলতলা টেক থেকে বিপ্লব মন্ডল ও গত ২২ জানুয়ারি গাজীপুর মেট্রো সদর থানাধীন কলেরবাজার এলাকায় আমিনুল ইসলাম রনি নামে আরেক ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চালক খুন হন। এর আগে ২০১৮ সালের পহেলা ফেব্রুয়ারি কালীগঞ্জ উপজেলার বাঘেরপাড়া এলাকায় শফিকুল ইসলাম নামে এক অটোরিকশা চালককে খুন করে অটোরিকশা নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা।

বগুড়া পলিটেকনিক ইন্সস্টিটিউটের ছাত্র হিমেল। গাজীপুর সিটি করপোরেশন ১৬নম্বর ওয়ার্ড কলেজপাড়া এলাকার সাংবাদিক রাশিদুল হকের পুত্র তিনি। হিমেল জানায়, গত ২২ অক্টোবর রাতে তিনি বগুড়া থেকে ঢাকাগামী একটি যাত্রীবাহী বাসযোগে কলেজপাড়া এলাকায় তার বাড়ির মাত্র ৩০ গজ দূরে নামেন। তখন সময় ভোররাত আনুমানিক সাড়ে তিনটা। বাস থেকে নামার পর পরই কয়েকজন ছিনতাইকারী তার গতিরোধ করে মুঠোফোন ও টাকা রাখার থলে ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

গাজীপুর ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান (ন্যাশনাল পার্ক) রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. রেজাউল করিম জানান, গত ১৯ অক্টোবর রাত আটটার দিকে ও একই দিন দিবাগত ভোররাত সাড়ে তিনটার দিকে জাতীয় উদ্যানের অভ্যন্তরে পৃথকস্থানে দুইবার ডাকাতির ঘটনা ঘটে। ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানে সাত ঘন্টায় দুইদফা ডাকাতি হয়, ২২ অক্টোবর। এ ঘটনায় পার্ক বিট কর্মকর্তা মাহমুদার রহমান বাদী হয়ে গাজীপুর মেট্রো সদর থানায় গত ২০ অক্টোবর মামলা দায়ের করেছেন (মামলা নম্বর ৫২, তারিখ: ২০ অক্টোবর ১৯)। প্রথম দফায় ডাকাতরা জাতীয় উদ্যানের ‘জেসমিন’ বিশ্রামাগারের কাছ থেকে পার্ক বিট কর্মকর্তা মাহমুদার ও স্প্রীডবোর্ট চালক আরিফের হাত-পা ও চোখ বেঁধে ফেলে। খবর পাওয়ার পর তিনি তাদের উদ্ধারে সরকারি অস্ত্রসহ বন প্রহরীদের নিয়ে জাতীয় উদ্যানের মূল ফটকের সামনে যান। পরে সেখানে একটি টহল পুলিশের গাড়ি দেখতে পেয়ে তিনি পুলিশের সহযোগিতা চান। এর আগে তিনি গাজীপুর মেট্রো সদর থানার ওসিকে ডাকাতির ঘটনা জানান। অথচ তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশের পক্ষ থেকে তেমন কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। এতে ডাকাতদল আরো সংঘবদ্ধ হয়ে ভোররাতে ফের জাতীয় উদ্যানের ভিআইপি বিশ্রামাগার ‘চম্পায়’ ডাকাতি করার সুযোগ পেয়েছে বলেও তার অভিমত।

ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান রেঞ্জে কর্মরতরা জানায়, ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানের ৪নম্বর গেট সংলগ্ন ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পশ্চিম দিক। ওই মহাসড়কে এক মোটরসাইকেল চালককে আর এক মোটরসাইকেল আরোহী চলন্ত মোটরসাইকেল থেকে মহাসড়কে ফেলে দেয়। পরে ওই মোটরসাইকেল ছিনতাইকরে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে হামলাকারীরা। এ ছাড়া বন বিভাগের এক অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারির স্ত্রীর স্বর্ণের কানের দুল ওই একই স্থান থেকে দিনদুপুরে ছিনতাই হয়। সম্প্রতি ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানের উত্তরদিকে রাজেন্দ্রপুর চৌরাস্তা সংলগ্ন ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে দিনদুপুরে এক মোটরসাইকেল চালককে চলন্ত মোটরসাইকেল থেকে ফেলে দিয়ে মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায় ছিনতাইকারীরা। এসব ঘটনা ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানে ডাকাতির পর মাত্র ১০ দিনের ব্যবধানে ঘটেছে। 

অন্যদিকে, ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান ও এর আশপাশের এলাকায় ডাকাতি এবং ছিনতাই প্রসঙ্গে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের ডিসি (ক্রাইম) মোহাম্মদ শরিফুর রহমান জানান, ‘ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের মাস্টারবাড়ী থেকে রাজেন্দ্রপুর চৌরাস্তা পর্যন্ত সিসি ক্যামেরা স্থাপন জরুরি। কেননা মহাসড়কের ওই অংশটি অপরাধপ্রবণ। তবে ওই বিশাল এলাকায় সিসি ক্যামেরা স্থাপন ব্যয়বহুল। এ ব্যাপারে গাজীপুর সিটি মেয়রের সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। এ ছাড়া অপরাধ দমন এবং নিরাপত্তার স্বার্থে টহল পুলিশিং কার্যক্রম জোরদার করা হয়েছে বলে তিনি জানান।’ 

গাজীপুর মেট্রোপলিটন টঙ্গী জোনে ছিনতাই ও ডাকাতি প্রসঙ্গে অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (টঙ্গী জোন) শাহাদত হোসেন জানান, ‘টঙ্গী জোনে ছিনতাইপ্রবণ এলাকাগুলো চিহ্নিত করে নিয়মিত পুলিশি অভিযান চলছে। এ ছাড়া পুলিশি টহল দল সংখ্যাও বৃদ্ধি করা হয়েছে।’

গাজীপুর কালীগঞ্জে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা ছিনতাইকারী চক্রের সদস্যদের আটক প্রসঙ্গে কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)  মিজানুল হক যোগফলকে জানান, ‘তিনি সম্প্রতি কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেছেন। বিগত দিনে কালীগঞ্জ থানায় ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা ছিনতাই ও চালক হত্যার ঘটনাগুলোতে থানায় মামলা হয়েছে। এসব হত্যাকান্ডের প্রকৃত ঘটনা উৎঘাটন করতে পুলিশি তদন্ত কার্যক্রম চলছে।’ 


বিভাগ : তালাশ