সাংবাদিকতার স্বাধীনতা ও যোগফল

যোগফল বার্তা বিভাগ

06 Jul, 2020 04:07am


সাংবাদিকতার স্বাধীনতা ও যোগফল
ছবি : সংগৃহীত

যোগফল এবং এই প্রতিষ্ঠানে যারা কাজ করে তারা সবাই স্বাধীন। যোগফল সাংবাদিকদের মূল্যবোধের একটা বড় অংশ হচ্ছে এটা নিশ্চিত করা যে তাদের সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়াটা স্বাধীন এবং সবধরনের সন্দেহের ঊর্ধ্বে।

আপনি যদি মানুষের কাছে নির্ভরযোগ্য হতে চান, তাহলে আপনার স্বাধীনতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই স্বাধীনতা মানে আপনি লম্বা বাঁশ দিয়ে দাঁত মাজতে পারবেন। কিন্তু অন্যের নাকের ডগায় বাঁশের আঘাত লাগাতে পারবেন না।

স্বাধীনতা যে একজন সাংবাদিকের মূল্যবোধের অংশ হবে, তা বলাই বাহুল্য। কিন্তু নিচের এই চারটি প্রশ্নের আপনি কী উত্তর দেবেন?

এক] আপনি কি সরকার, রাজনৈতিক, বাণিজ্যিক বা অন্য গোষ্ঠী স্বার্থ থেকে স্বাধীন? আপনাকে দেখে কি তা মনে হয়?

দুই] আপনি কি অন্য কোন প্রতিষ্ঠান, তাদের উৎপন্ন দ্রব্য, কর্মকাণ্ড বা সেবাকে অনুমোদন বা সমর্থন করতে অস্বীকার করেন, বা আপনাকে দেখে কি মনে হয় অস্বীকার করছেন?

তিন]  অনুষ্ঠানে যাতে কোন বাণিজ্যিক পণ্যদ্রব্য প্রাধান্য না পায়, সে ব্যবস্থা কি নেন?

চার] আপনি কি একেবারে নিশ্চিত যে, আপনার প্রধান চাকরির বাইরে আপনার কর্মকাণ্ড আপনার সাংবাদিকতা বা অনুষ্ঠান প্রযোজনার ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে না? এই চার নীতি বিবিসির।

স্বাধীনতা হচ্ছে মানসিকতা। স্বাধীনতা আর নাছোড়বান্দা হওয়া এক ব্যাপার না। স্বাধীনতার মানে এই না যে, আপনাকে অন্য সবার উদ্দেশ্য নিয়ে সন্দিহান হতে হবে। এতে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির উদ্ভব হতে পারে।

আপনার স্বাধীনতা জনসমক্ষে দেখানো যেমন গুরুত্বপূর্ণ, আসলেই স্বাধীন হওয়া একই ভাবে গুরুত্বপূর্ণ।

আপনি হয়তো মনে করেন কেউ আপনার স্বাধীনতা নিয়ে সন্দিহান হবে না, কারণ আপনি একজন সাংবাদিক! কিন্তু আপনি সবসময় পাঠকের ভোটের মোকাবেলা করার জন্য তৈরি থাকবেন।

যোগফল এবং যারা এই প্রতিষ্ঠানে কাজ করে তারা অবশ্যই স্বাধীন। হয়তো নাছোড়বান্দা ধরনের স্বাধীন। সব সাংবাদিকই সেরকম।

সাংবাদিকরা ভাবতে পছন্দ করে:

“আমরা কারও কাছ থেকে আদেশ নেই না। কোন স্টোরি কভার করা হবে এবং তা কখন প্রচার করা হবে সেসব বিষয়ে আমরা নিজের মত অনুসারে কাজ করি। স্বাধীনতা মানেই হচ্ছে সম্পাদকীয় সততা এবং নিরপেক্ষতা। আমরা কোন ভয়-ভীতি ছাড়া কাজ করি, কাউকে খুশি করার জন্য নয়। সব কথা এখানেই শেষ।"

কিন্তু পুরনো একটি প্রবাদ আছে: ‘আমরা নিজেদের বিচার করি আমাদের উদ্দেশ্য দিয়ে; অন্যরা  তা করে আমাদের কর্ম দিয়ে। ‘

শুধুমাত্র নিজে স্বাধীনচেতা ভাবা কখনওই যথেষ্ট নয়। আর এই ভাবনাটা কখনওই আপনার স্বাধীনতা সম্পর্কে আপনার পাঠকদের সবাইকে নিশ্চিত করবে না।

পাঠকের প্রতি দায়িত্ববোধের কারণে, যোগফলের সাংবাদিকদের দেখাতে হবে তাদের সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়াটা স্বাধীন এবং সকল প্রকার সন্দেহ ও অস্পষ্টতা দূর করতে তাদের সচেষ্ট হতে হবে।

খবরের সাথে যুক্ত [জড়িত নয়, জড়িত শব্দ অপরাধ অর্থে ব্যবহার হয়] কোন ব্যক্তির সাথে আপনার সম্পর্ক নিয়ে যদি কোন সন্দেহ থাকে, তাহলে নিজেকে প্রশ্ন করুন: ‘অন্য ব্যক্তির কাছে এটা কেমন দেখাবে?’ বা ‘দর্শকদের কেউ যদি জানতেন যে আমি এই পথে স্টোরিটি পেয়েছি, তা হলে কি তারা আমাকে স্বাধীন ভাববে?’

নিজেকে নিশ্চিত করুন: যারা আপনার উপর অনাকাঙ্ক্ষিত প্রভাব ফেলতে পারে, আপনি কি আসলেই নিজের সাথে তাদের মধ্যে যথেষ্ট দূরত্ব সৃষ্টি করছেন?

আর, একজন বিজনেস সাংবাদিক হিসেবে আপনাকে যদি কোন ব্র্যান্ড বা পণ্যদ্রব্য নিয়ে কাজ করতে হয়, তা হলে আপনি কি একবারে নিশ্চিত যে আপনি ওই পণ্যদ্রব্য নিয়ে রিপোর্ট করছেন, সেটা অনুমোদন করছেন না? এতে আপনার পক্ষপাতিত্ব সাধারণভাবেই চলে আসে।


বিভাগ : মর্গ