আজ থেকে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে ভ্যাট ফাঁকিরোধে বসছে ইএফডি মেশিন

যোগফল রিপোর্ট

25 Aug, 2020 07:27am


আজ থেকে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে ভ্যাট ফাঁকিরোধে বসছে ইএফডি মেশিন
ছবি : সংগৃহীত

ভ্যাট ফাঁকি রোধে ইসিআর যন্ত্রের পরিবর্তে এখন থেকে ব্যবসা-বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে বসানো হবে ইএফডি নামক আধুনিক প্রযুক্তির বিশেষ ইলেক্ট্রনিক মেশিন। যন্ত্রটি সরাসরি বিশেষ সফটওয়্যারের মাধ্যমে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সার্ভারে সংযুক্ত থাকবে। ফলে নির্দিষ্ট প্রতিষ্ঠানে প্রতিদিন কি পরিমাণ বিক্রি হচ্ছে সেই তথ্য তাৎক্ষণিক জানতে পারবে এনবিআর। 

এছাড়া ইলেক্ট্রনিক ফিসক্যাল ডিভাইসে (ইএফডি) একবার ইনপুট দেওয়া হলে সেই তথ্য আর গোপন করার কোন সুযোগ নেই। এতে ভ্যাট ফাঁকি রোধ করা সম্ভব হবে। মঙ্গলবার [২৫ আগস্ট ২০২০] পাইলট প্রকল্প হিসেবে ঢাকা ও চট্টগ্রামের ১০০টি প্রতিষ্ঠানে ইএফডি মেশিন বসানো হচ্ছে। এই প্রকল্পের আওতায় পর্যায়ক্রমে সারাদেশে এক লাখ মেশিন বসানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সারাদেশের ২৫ ধরনের বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে ইএফডি বাধ্যতামূলকভাবে বসাতে হবে।

চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট বাস্তবায়নে নিজস্ব অর্থায়নে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছে সরকার। ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ের বাজেটের বড় অংশ আসে ভ্যাট আহরণ থেকে। কিন্তু ভ্যাট আইন বাস্তবায়নে ব্যবসায়ীদের অনীহা, ভ্যাট ফাঁকির প্রবণতা বেড়ে যাওয়া এবং করোনা পরিস্থিতির কারণে সরকারের রাজস্ব আয় চাপের মুখে পড়েছে। এই বাস্তবতায় ভ্যাট ফাঁকি রোধ করা সম্ভব হলে রাজস্ব আদায় বাড়বে বলে মনে করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। 

সম্প্রতি তিনি রাজস্ব আদায় সংক্রান্ত এক অনুষ্ঠান শেষে বলেন, সরকারের ব্যয় মেটাতে হলে রাজস্ব আদায় বাড়াতে হবে। তবে দুঃখজনক হলেও সত্য, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ভ্যাট আহরণ বাড়াতে ইএফডি মেশিন বসাতে পারেনি এনবিআর। যত দ্রুত এই কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা যাবে ভ্যাট আদায় তত বাড়বে।

এদিকে ভ্যাট আদায়ে স্বচ্ছতা আনতে চলতি অর্থবছরের শুরু থেকেই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ইএফডি মেশিন চালু করার কথা জানিয়েছিল এনবিআর। ভ্যাট আইন অনুযায়ী বাংলাদেশে যেসব ব্যবসায়ীর বার্ষিক লেনদেন ৫০ লাখ টাকার বেশি। অর্থাৎ যারা ভ্যাটের আওতাধীন হবে তাদের অবশ্যই এই ইএফডি ব্যবহার করতে হবে। যেসব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ইসিআর চালু রয়েছে তার সবকটি ইএফডির আওতায় আসবে। ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে পণ্য বেচাকেনায়, দক্ষ ব্যবস্থাপনায় এটি ব্যবহার করা হয়। রাজস্ব বিভাগ এটির মাধ্যমে ব্যবসায়িক লেনদেন বা কেনাবেচা সরাসরি মনিটর করতে পারে। ফলে অত্যাধুনিক এ যন্ত্র ব্যবহার করলে পণ্য ও সেবা বেচাকেনায় স্বচ্ছতা আসবে এবং ভ্যাট ফাঁকি অনেকাংশে কমে যাবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। এছাড়া যন্ত্রটি এনবিআরের সার্ভারে সরাসরি যুক্ত থাকায় প্রতিটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের প্রতিদিনকার বেচাবিক্রির তথ্য সরাসরি এনবিআরের সার্ভারে চলে আসবে। ব্যবসায়ীরাও যাবতীয় লেনদেনের তথ্য সংরক্ষণ করতে পারবে, যা তাদের ব্যবসায়ের হিসাব সংরক্ষণকে সহজ করে দেবে।

চীনভিত্তিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান এসজেডজেডটি মেশিন সরবরাহ করছে। গতবছর এনবিআর মোট ১০ হাজার মেশিন কেনার কার্যাদেশ প্রদান করে। এর মধ্যে ১০০ মেশিন বেশ আগেই দেশে পৌঁছে গেছে। বাকি মেশিন আনার প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। 

মূলত ভ্যাট ফাঁকি রোধে ডিপার্টমেন্টাল স্টোর থেকে শুরু করে ২৫ ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ইএফডি চালু করবে এনবিআর। এর মধ্যে রয়েছে: আবাসিক হোটেল, রেস্তরাঁ ও ফাস্টফুড, ডেকোরেটর্স ও ক্যাটারার্স, মোটরগাড়ির গ্যারেজ-ওয়ার্কশপ এবং ডকইয়ার্ড, বিজ্ঞাপনী সংস্থা, ছাপাখানা ও বাঁধাই সংস্থা, কমিউনিটি সেন্টার, মিষ্টান্ন ভা-ার, স্বর্ণ-রৌপ্যকার ও স্বর্ণ পাইকারি, আসবাবপত্র বিক্রয়কেন্দ্র, কুরিয়ার ও এক্সপ্রেস মেইল সার্ভিস, বিউটি পার্লার, হেলথ ক্লাব ও ফিটনেস সেন্টার, কোচিং সেন্টার, সামাজিক ও খেলাধুলা বিষয়ক ক্লাব, তৈরি পোশাক বিপণন, ইলেক্ট্রনিক ও ইলেকট্রিক্যাল গৃহস্থালি সামগ্রীর বিক্রয়কেন্দ্র শপিং সেন্টার, ডিপার্টমেন্টাল স্টোর, জেনারেল স্টোর বা সুপারশপ, বড় ও মাঝারি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান, যান্ত্রিক লন্ড্রি, সিনেমা হল ও সিকিউরিটি সার্ভিস।

এদিকে এনবিআর মুজিববর্ষের কর্মসূচীর অংশ হিসেবে ইএফডি কার্যক্রম চালুর জন্য মঙ্গলবার [২৫ আগস্ট ২০২০] উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব ও এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম অনুষ্ঠানটির উদ্বোধন করবেন। ভার্চুয়াল এ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ঢাকা ও চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী নেতারা সংযুক্ত হবেন।