প্রদীপের ব্যাংক হিসাব জব্দের পরও মামলায় বিরাট খরচ!

যোগফল প্রতিবেদক

03 Sep, 2020 06:44pm


প্রদীপের ব্যাংক হিসাব জব্দের পরও মামলায় বিরাট খরচ!
ছবি : সংগৃহীত

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা হত্যাকান্ডে আত্মসমর্পণের পর আদালতের নির্দেশে গ্রেপ্তার রয়েছে টেকনাফ থানা থেকে বরখাস্ত হওয়া ওসি প্রদীপ কুমার দাশ। আদালতের আদেশে জব্দ করা হয়েছে ওসি প্রদীপ ও তার স্ত্রীসহ ৮ জনের ব্যাংক হিসাব।

অবৈধ অর্থ উপার্জনের অভিযোগে দুদকের দায়ের করা দূর্নীতির মামলায় পলাতক রয়েছে স্ত্রী চুমকি কারণ। এরপরও ওসি প্রদীপের পক্ষে আইনি লড়াইয়ে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় হচ্ছে কোথা থেকে, তা নিয়ে ভাবিয়ে তুলেছে স্থানীয় প্রশাসন ও মামলার তদন্তকারী সংস্থার কর্মকর্তাদের।

তাদের প্রশ্ন, ব্যাংক হিসাব ফ্রিজ করার পরও প্রদীপের পক্ষে আইনি লড়াইয়ের পেছনে বিপুল পরিমাণ টাকার জোগান দিচ্ছে কে? এ বিষয়ে এখনও পর্যন্ত কেউ কোন হদিস পাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন দুদকের সরকারি কৌঁসুলি অ্যাডভোকেট মাহমুদুল হক মাহমুদ।

তিনি বলেন, ওসি প্রদীপের পক্ষে আইনি সহায়তা দিতে গত ২৭ আগস্ট ঢাকার একজন ব্যারিস্টারের নেতৃত্বে চট্টগ্রাম থেকে ৫ জন আইনজীবী ও ২ জন সহকারী ককসবাজার যান। ১৫ দিন রিমান্ড শেষে গত ২ সেপ্টেম্বর আদালত প্রদীপকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেয়ার পর এসব আইনজীবী চট্টগ্রামে ফিরে আসেন।

আর ২৭ আগস্ট থেকে ২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৭ দিন দুই সহকারীসহ ৭ জন আইনজীবী ককসবাজারের কলাতলি এলাকার ওয়েস্টিন হোটেলে অবস্থান করেন।

এই সময়ে তাদের ফি, থাকা-খাওয়া, যাতায়াতসহ বিভিন্ন পর্যায়ে ব্যয় হয়েছে ১২-১৫ লাখ টাকা। আর এই বিপুল পরিমাণ অর্থ আসল কোথা থেকে। কে-ই বা এই অর্থের জোগানদাতা।

তিনি বলেন, গত ১৭ আগস্ট ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও তার স্ত্রী চুমকি কারণসহ ৮ জনের ব্যাংক হিসাব ৩০ দিনের জন্য ফ্রিজ (স্থগিত) করেছে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইউ)। গত ২৩ আগস্ট ওসি প্রদীপ ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলা করেন দুদকের সহকারী পরিচালক রিয়াজ উদ্দিন। এরপর গা ঢাকা দেয় চুমকি কারণ। এ অবস্থায় প্রদীপের পক্ষে ব্যয়ের অর্থ জোগানদাতা কে?


বিভাগ : আড়চোখ


এই বিভাগের আরও