সাংবাদিককে গুলি করিয়া হত্যার ব্যাপারটি সুপরিকল্পিত

আসাদুল্লাহ বাদল

30 Jan, 2020 03:45am


সাংবাদিককে গুলি করিয়া হত্যার ব্যাপারটি সুপরিকল্পিত
শেখ মুজিবর রহমান

স্টাফ রিপোর্টার : পাকিস্তান আওয়ামী লীগের সম্পাদক শেখ মুজিবর রহমান গতকল্য শুক্রবার এক বিবৃতিতে আততায়ী কর্তৃক গুলীবর্ষণ করিয়া সাংবাদিক জামির আহমেদকে নিহত ও পরিষদ সদস্য আব্দুল বাকী বালুচকে আহত করার সমগ্র দুর্ঘটনাটিকে সুপরিকল্পিত ষড়যন্ত্র বলিয়া অভিহিত করেন।

তিনি বলেন যে, আইনের শাসনের নামে দেশে পূর্ণ উচ্ছৃঙ্খলতা বিরাজমান। আর যেটুকু আইন রয়েছে তাও বন্য আইন।
বিবৃতিতে জনাব রহমান অভিযোগ করেন যে, জাতি অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক ভাবে অল্প সময়ের মধ্যে এক শ্রেণির  সমাজবিরোধী স্বার্থবাদী মহলের উন্মত্ততার ফলে কয়েকটি মূল্যবান জীবন হারাইয়াছে।

গত বৃহস্পতিবার রাত্রে সংগঠিত উক্ত ঘটনার নিন্দা করিয়া জনাব রহমান বলেন, এখন আর সন্দেহ করার কিছু নাই যে, এই আন্দোলনকে  সমূলে স্তÍব্ধ করিয়া দিবার জন্য স্বর্থবাদী মহলের ঘৃন্য ষড়যন্ত্রেরই একটি অংশ মাত্র। অবস্থাদৃষ্টে প্রতীয়মান হয় যে, ইহা রাজনৈতিক হত্যাকাÐ ব্যতিত আর কিছুই নহে।

আওয়ামী লীগ নেতা বলেন যে, জনাব বালুচ পরিষদের ভিতরে ও বাহিরে গণতন্ত্রের পক্ষ সমর্থন করিয়া এবং ক্ষমতাসীনদের দুর্নীতি ঔদ্ধত্যপূর্ণ কার্যকলাপের তথ্য উদঘাটন করিয়া একটি মর্য্যাদাসম্পন্ন স্থান দখল করিয়াছেন। ইহাতে ক্ষমতাসীনগণও অস্বস্তিবোধ করিয়াছেন।

তিনি বলেন যে, জনাব বালুচের উপড় আক্রমণ সমগ্র  গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে আক্রমণ। পূর্ব পাকিস্তান পরিষদের ডেপুটি স্পিকার হত্যার অজুহাতে যাহারা নিয়মতান্ত্রিক পথে ক্ষমতা দখল করিয়াছেন আজ তাহাদের প্রতি স্বাভাবিক প্রশ্ন, কেন নিছক হত্যার শিকার এতগুলো প্রাণ বিসর্জিত হইল। কেন পূর্ব এবং পশ্চিম পাকিস্তানের  বহু নিরীহ নাগরিককে এক বিশেষ শিকারে প্রাণ হারাইতে হইল ?

তিনি বলেন যে, প্রেসিডেন্ট নির্বচনের পরে সংঘটিত এই সফল দুর্ঘটনার প্রতি লক্ষ্য করিয়া দেখা যাইবে, প্রতিটি ক্ষেত্রেই নিহত ব্যক্তি বিরোধী দলীয় কর্মী।

বিচার বিভাগীয় কমিশন প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে সরকারের অনিচ্ছার উল্লেখ করিয়া তিনি বলেন যে, যথাযথ বিচার বিভাগীয় তদন্ত হইলে দেখা যাইবে দোষী ব্যক্তিগণও একটি বিশেষ ক্যাম্পের লোক।

নোট : মুজিব শতবর্ষ উদপাপন হচ্ছে। ১৯৪৭-১৯৭৫ সময়ে শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনৈতিক ভূমিকা কিভাবে প্রচার হতো গণমাধ্যমে? এই প্রশ্নের উত্তর জানাতে পাঠককে যোগফল একটু পেছনে ফেরাতে চায় ইতিহাসের গতিতে। দৈনিক আজাদ এ ৩০ জানুয়ারি ১৯৬৫ তে প্রকাশ হওয়া রিপোর্ট, আজ ৩০ জানুয়ারি ২০২০ প্রকাশ হলো। রিপোর্টটি অবিকৃত রেখে বানান সংশোধন করা হয়েছে।







বিভাগ : শিকড়