চটপটি বিক্রেতাদের দখলে রাজবাড়ীর মাঠ, শিশু কিশোররা খেলাধুলা থেকে বঞ্চিত

যোগফল প্রতিবেদক

19 Oct, 2020 06:59am


চটপটি বিক্রেতাদের দখলে রাজবাড়ীর মাঠ, শিশু কিশোররা খেলাধুলা থেকে বঞ্চিত
ছবি : সংগৃহীত

জয়দেবপুর রাজবাড়ী মাঠ এখন চটপটি ফুচকা ওয়ালাদের দখলে। শিশু-কিশোরদের খেলার জন্য রয়েছে মাঠের এক কোনায় অল্প জায়গা।

বর্তমানে জয়দেবপুরে খেলার মাঠ নেই বললেই চলে। ফলে অধিকাংশ শিশু-কিশোর খেলাধুলার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এতে তাদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশ ব্যাহত হচ্ছে। বর্তমান প্রজন্ম মাঠে খেলাধুলা করতে না পেরে মোবাইল ও কম্পিউটারে গেমস খেলায় আসক্ত হয়ে পড়ছে। যন্ত্রনির্ভর খেলাধুলায় আসক্ত হওয়ায় তারা শারীরিক ও মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। ফলে তারা পড়াশোনায় মনোযোগী হচ্ছে না।

তরুণ প্রজন্মের সুস্থ বিকাশের জন্য খেলার মাঠ একটি অপরিহার্য বিষয়। মাঠে খেলাধুলা করলে যেমন শারীরিক সামর্থ্য বাড়ে, তেমনি মন সতেজ হয়।

এ ছাড়া অভিজ্ঞতা থেকে দেখা যায়, যারা মাঠে নিয়মিত খেলাধুলা করে। তারা অধিকাংশই বিপথগামী হয় না। কাজেই খেলার মাঠ শিশুদের জন্য উপযুক্ত করতে হবে। তরুণ প্রজন্মের মধ্যে খেলাধুলার আগ্রহ সৃষ্টি হওয়া দেশের উন্নতির সহায়ক এটা মনে রাখা দরকার।

রাজবাড়ী মাঠে একাদিক ব্যক্তির সাথে কথা বলে জানা যায়, রাজবাড়ী মাঠ এখন চটপটি ফুচকা ওয়ালাদের দখলে চলে গেছে। 

আশিস কুমার দের রাজবাড়ী মাঠের পূর্ব পাশে বাসা। তিনি নিয়মিত রাজবাড়ী মাঠের চারিদিকে হাঁটাচলা করেন। ছোট বেলা এই মাঠে খেলাধুলা করেছেন তিনি। চটপটি ফুচকার দোকানের জন্য রাজবাড়ী মাঠ এখন পুরো তাদের দখলে। মাঠের এক পাশে খেলাধুলার সুযোগ হয় শিশুদের। চটপটি ফুচকা দোকান রাতে বসতে পারে। দিনের বেলা কোনো অবস্থাতেই দেওয়া উচিৎ নয়। শিশুদের খেলাধুলার মাধ্যমেই শারীরিক গঠনের বিকাশ হয়।

আনোয়ার হোসেন বছর খানেক ধরে জয়দেবপুর শিমুলতলী এলাকায় বাস করেন। শিশুর পড়ালেখার সুবাদে। তিনি বলেন জয়দেবপুরে হাঁটাচলার জন্য রাজবাড়ী মাঠ ছাড়া উপযুক্ত কোনো জায়গা নেই। তাই তিনি নিয়মিত আসেন এখানে। মাঠে শিশুদের খেলাধুলার সুযোগ যদি আমরা না করে দিতে পারি, তা হলে তারা অন্যায়, আড্ডাবাজি করে সময় পার করবে। তাতে করে অপরাধ প্রবণতা বেড়ে যেতে পারে। তাই পুরো মাঠে খেলাধুলার জন্য উন্মুক্ত করা হউক। 

রাজবাড়ী মাঠে নিয়মিত হাঁটাচলা করার জন্য আসেন এক গৃহিণী। তিনি বলেন আমাদের উচিৎ শিশুদের খেলারধুলার সুযোগ করে দেওয়া। শিশুদের আমরা খেলাধুলার সুযোগ করে দিতে না পারলে। তারা মোবাইলে বিভিন্ন গেমসে সময় কাটাবে। তাতে করে তাদের চোখের ও পড়াশোনার ক্ষতি হবে। চটপটি ফুচকা দোকান দ্রুত সরিয়ে খেলাধুলার জন্য ব্যবস্থা করে দেওয়া হউক।

নিয়মিত হাঁটাচলা করেন একাধিক ব্যক্তির সাথে কথা বলে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে ফুচকা চটপটি দোকান দিয়ে এই মাঠ দখল করে আছে। প্রশাসন দেখেও না দেখে আছে। প্রশাসনের কাছে তারা অনুরোধ জানায় শিশুদের জন্য দ্রুত এই মাঠ খেলাধুলার ব্যবস্থা করার জন্য। 

মাঠে নিয়মিত খেলাধুলা করে একাধিক শিশু কিশোরদের সাথে কথা বলে জানা যায়। মাঠের এই অল্প জায়গায়ই তাদের খেলতে হয়। তাছাড়া আর কোনো উপায় নাই। মাঝে মধ্যে খেলতে গিয়ে মাঠে বিছানো চেয়ার ভেঙে যায়।

তোমরা কখনও অভিযোগ করেছো চটপটি ফুচকা দোকানের বিরুদ্ধে? এই প্রশ্নের জবাবে তারা বলে বলে লাভ নাই। আগের দিন সিটি করপোরেশন ভেঙে যায়, পরের দিন আবার আগের অবস্থা। তাই এখন আর আমরা কেউ কিছু বলি না।

আমাদের যদি পুরো মাঠে খেলতে দেওয়া হয় তা হলে ভাল হতো। অনেকে আসে  খেলতে। কিন্তু এই অল্প জায়গায় বেশি জন খেলা যায় না।


বিভাগ : খেলা