এসআই আকবরকে পুলিশ আটক করেছে?

যোগফল রিপোর্ট

10 Nov, 2020 08:41am


এসআই আকবরকে পুলিশ আটক করেছে?
ছবি : সংগৃহীত

সিলেটের বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ও বরখাস্ত রীডভ উপ-পরিদর্শক (এসআই) আকবরকে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয়দের সহযোগিতায় সাদা পোশাকের পুলিশ আটক করেছে বলে জেলা পুলিশের দাবি।

সোমবার [৯ নভেম্বর ২০২০] সন্ধ্যায় আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন এই দাবি করেন।

তিনি বলেন, ‘গত ২৬ দিন ধরে আকবরকে আটকের চেষ্টা করছে পুলিশ। গত রাতে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায় যে আজ সে কানাইঘাট সীমান্ত দিয়ে ভারতে পালানোর চেষ্টা করবে তাই কানাইঘাট ও জকিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের তত্ত্বাবধানে সীমান্তে নজরদারি বাড়ানো হয়। তারাই আকবরকে আটক করেন।’

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিপডভতে আকবরের বক্তব্য বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা আটকের আগে কেউ এরকম ভিডিপডভ বানিয়েছে কিনা তা আমরা বলতে পারবো না। তবে জেলা পুলিশ কোনো ভিডিপডভ বানায়নি। আর আমরা সবসময়ই আসামি গ্রেপ্তারে সাধারণ মানুষের সহযোগিতা নেই, এখানেই কিছু বিশ্বস্ত বন্ধু আমাদের সহযোগিতা করেছেন।’

তবে, পুলিশ ভারতীয় খাসিয়া জনগোষ্ঠীর সহযোগিতা নিয়েছিলো কী না সে বিষয়ে কিছু বলতে চাননি তিনি। এ ছাড়াও, আকবর ভারতে পালিয়ে গিয়েছিলো কী না এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘হতে পারে সে ভারতে পালিয়ে গিয়েছিলো। বাংলাদেশে ঢুকতে গিয়েই সীমান্তে আটক হয়েছে। অথবা যে ভারতে যাওয়ার সময় আটক হয়েছিলো। তবে এটুকু আমরা বলতে পারি যে সিলেট জেলা পুলিশের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানেই তাকে আটক করা হয়েছে।’

এদিকে বরখাস্ত এসআই আকবর হোসেন ভুইয়াকে আটকের পর তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। 

আকবরের আটকের পর বেশ কিছু ভিডিয়ো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে যাতে আকবর ও তাকে আটক করা ব্যক্তিদের কথাবার্তায় পরিষ্কার বোঝা যায় যে তারা ভারতীয় অংশের খাসিয়া জনগোষ্ঠী।

একটি ভিডিয়োতে আকবরকে বাংলাদেশি নাগরিকদের কাছে হস্তান্তর করা হচ্ছে তাও নিশ্চিতভাবে দেখা যায়। এ সকল ভিডিয়োতে বিভিন্ন জিজ্ঞাসাবাদে আকবরও বলে যে, সে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ভোলাগঞ্জ সীমান্ত দিয়ে ভারতে পালিয়েছিলো।

১৯ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক বলেন, ‘আকবরকে ভারত সীমান্তের অভ্যন্তরে খাসিয়ারা আটক করেন। পরে তারা সীমান্ত এলাকার আব্দুর রহিম নামের এক বাসিন্দার সঙ্গে যোগাযোগ করে সীমান্তেই আকবরকে তার হাতে তুলে দেন। আব্দুর রহিমই পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে আকবরকে পুলিশে হস্তান্তর করে।’

তিনি বলেন, ‘এটি সীমান্তের একটু দুর্গম এলাকা। আর বিএসএফ বা আমরা বিষয়টি জানার আগে স্থানীয়রাই হস্তান্তর করে ফেলেছেন’।

এদিকে আটকের পর খাসিয়াদের জেরার মুখে আকবর জানান, সিনিয়র এক অফিসারের কথায় তিনি পালিয়ে যান।

তিনি বলেন, ‘আমাকে এক সিনিয়র অফিসার বলছিল, তুমি এখন চলে যাও। দুই মাস পরে আইসো। তখন মোটামুটি ঠান্ডা হয়ে যাবে।’

আকবর আরও বলেন, ‘ইন্ডিয়ার একটা পরিবার বলছিলো তুমি এদিকে এসে থাকো এখানে। মাঝেরগাঁও ভোলাগঞ্জ দিয়ে গিয়েছি।’

মাঝেরগাঁও ভোলাগঞ্জ সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার একটি এলাকা। আকবর তার আত্মীয় ও এই উপজেলার এক সাংবাদিক আবদুল্লাহ আল নোমান এবং স্থানীয় হেলাল উদ্দিনের সহযোগিতায় এ সীমান্ত দিয়েই ভারতে যান বলে পুলিশের বিভিন্ন সূত্রে আগে জানিয়েছিলো।

আকবরকে পালিয়ে যেতে করা সহযোগিতা করেছিলো তা তদন্তে পুলিশ সদরদপ্তরের একটি বিশেষ তদন্ত দল গঠন করা হয় গত ১৯ অক্টোবর।

পরদিন থেকে সিলেটে তদন্ত কাজ শুরু করে তদন্ত দল। পরে আকবরকে পালাতে সহযোগিতার কারণে ২১ অক্টোবর বন্দরবাজার ফাঁড়ির আরেক উপ-পরিদর্শক হাসান উদ্দিনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

এদিকে, হেলাল উদ্দিনকে অবৈধ পাথর উত্তোলনের একটি মামলায় গত ২২ অক্টোবর গ্রেপ্তার করে কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশ। তবে তাকে আকবরকে পালাতে সহযোগিতার ব্যাপারেও জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ।

সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন বলেন, ‘নোমানকে আটক করতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে। যেহেতু আকবরকে আটক করা গেছে, এখন তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে দ্রুতই নোমানের সন্ধান পাওয়া যেতে পারে।’


বিভাগ : তালাশ


এই বিভাগের আরও