শমীর মোবাইল চুরি, মানহানির অভিযোগের সত্যতা মেলেনি

যোগফল রিপোর্ট

04 Feb, 2021 01:51pm


শমীর মোবাইল চুরি, মানহানির অভিযোগের সত্যতা মেলেনি
ছবি : সংগৃহীত

২০১৯ খ্রিস্টাব্দে জাতীয় প্রেসক্লাবে মোবাইল চুরির ঘটনায় সাংবাদিকদের নিয়ে মানহানিকর বক্তব্য দেওয়া ও তল্লাশির অভিযোগে অভিনয় শিল্পী শমী কায়সারের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মানহানি মামলায় অভিযোগের বিষয়ে সত্যতা পায়নি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। বুধবার [৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১] আদালতে ওই মামলার প্রতিবেদন জমা দেন সংস্থাটির পরিদর্শক মো. লুৎফুর রহমান।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অনুসন্ধানে শমী কায়সারের দ্বারা বাদিকে বা উপস্থিত কোনো সাংবাদিক বা উপস্থিত অন্য কোনো ব্যক্তিদের উদ্দেশ্যে চোর বলে মন্তব্য করা, আটকে রাখা, তল্লাশি করা, আটকে রেখে তল্লাশি করার নির্দেশ দেওয়ার বিষয়ে কোনো প্রত্যক্ষদর্শী সাক্ষি ও প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

আরও বলা হয়েছে, এ ছাড়া বাদি নিজেও এরূপ কোনো প্রকার সাক্ষ্যপ্রমাণ উপস্থাপন করতে পারেননি। এ-সংক্রান্ত কোনোরূপ স্থিরচিত্র বা ভিডিয়ো ফুটেজ উপস্থাপন করতেও বাদি ব্যর্থ হয়েছেন। বাদির অভিযোগে উল্লেখিত ঘটনাটি অনুষ্ঠানের আয়োজক কর্তৃপক্ষের নিরাপত্তা রক্ষীদের অনাকাঙ্ক্ষিত বাড়াবাড়ির কারণে ভুল বুঝাবুঝির ঘটনা ছিল বলে অনুসন্ধানে জানা গেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, অনুসন্ধানে নেওয়া সাক্ষ্যপ্রমাণ ও ঘটনার পারিপার্শ্বিক অবস্থা বিবেচনায় শমী কায়সারের বিরুদ্ধে মানহানির অভিযোগ প্রমাণ হয়নি।

২০১৯ সালের ২৪ অক্টোবর এই মামলায় শমী কায়সারের বিরুদ্ধে অভিযোগের ‘সত্যতা পায়নি’ মর্মে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেন শাহবাগ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাহবুব রহমান। ওই প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে নারাজি আবেদন করেছিলেন মামলার বাদি নুজহাতুল হাসান।

সেই নারাজি আবেদনের ওপর শুনানি শেষে একই বছরের ২৫ নভেম্বর আদালত অভিযোগটির অধিকতর তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দিতে পিবিআইকে নির্দেশ দেন।



এই বিভাগের আরও