আল জাজিরার বিরুদ্ধে মামলার আইনগত শুনানি হয়েছে

যোগফল প্রতিবেদক

23 Feb, 2021 06:20pm


আল জাজিরার বিরুদ্ধে মামলার আইনগত শুনানি হয়েছে
ছবি প্রতীকী

‘অল দ্য প্রাইম মিনিসটারস মেন’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রচারে কাতারভিত্তিক টেলিভিশন চ্যানেল আল-জাজিরার ডিরেক্টর জেনারেল (এডিটিং কউন্সিল) মোস্তফা সোওয়্যাগসহ চারজনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় আইনগত বিষয়ে শুনানি হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শহিদুল ইসলামের আদালতে শুনানি হয়।

এদিন আদালত জানতে চান, বিদেশি নাগরিকের বিরুদ্ধে এ দেশে মামলা চলতে পারে কি না? জবাবে আইনজীবী আব্দুল খালেক বলেন, আমরা দণ্ডবিধির ৩ ও ৪ ধারা ব্যাখ্যা করে বলেছি, এ মামলা বিদেশি নাগরিকের বিরুদ্ধে চলতে পারে।

কিন্তু ফৌজদারি কার্যবিধির ১৮৮ ধারা মতে বিদেশে অবস্থানরত কোন ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা চালু করতে হলে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে দেশের সীমানায় প্রবেশ করতে হয়।

দণ্ডবিধির ৩ ধারায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশের আইন বলে বিচারযোগ্য যেকোনো অপরাধের বিচার দেশের বাহিরে হলেও তা দেশিয় আইনে করা যাবে। ৪ ধারায় বলা হয়েছে, বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশের নাগরিককেও এ আইনের আওতায় বিচার করা যাবে।

এছাড়া ফৌজদারি কার্যবিধির ১৯০ ধারা অনুযায়ী ম্যাজিস্ট্রেটের মামলা আমলে গ্রহণের ক্ষমতার বিষয়টি ব্যাখ্যা করেন।

আইনজীবী আব্দুল খালেক বলেন, আদালত আমাদের ব্যাখ্যা ইতিবাচকভাবে নিয়েছেন। আশা করছি, আদালত ব্যাখ্যা গ্রহণ করে মামলাটি নেবেন। শুনানি শেষে মামলাটি আদেশের জন্য রেখেছেন বিচারক।

বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আশেক ইমামের আদালতে এই চারজনের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন করেন বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের নির্বাহি সভাপতি অ্যাডভোকেট মশিউর মালেক।

আবেদনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদকে নিয়ে মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য প্রকাশের অভিযোগ আনা হয়। আদালত বাদির জবানবন্দি গ্রহণ করে মামলাটি আদেশের জন্য ২৩ ফেব্রুয়ারি দিন রাখেন।

মামলার অপর আসামিরা হলেন, সায়ের জুলকারনাইন সামি, তাসমিম খলিল ও ডেভিড বার্গম্যান। অ্যাডভোকেট মশিউর মালেক মামলাটির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, প্রধানমান্ত্রী ও সেনাপ্রধানের বিরুদ্ধে সম্মানহানির বক্তব্য দিয়ে যড়যন্ত্র করেছে। অবৈধভাবে মিথ্যা বানোয়াট তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করেছে যা রাষ্ট্রদ্রোহের সামিল।

এসব কারণ দেখিয়ে ১৮৬০ সালের দণ্ডবিধির ১২৪/১২৪(এ)/১৪৯/৩৪ ধারায় মামলার আবেদনটি করা হয়।