অধিকার আদায় করে নিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

যোগফল রিপোর্ট

08 Mar, 2021 06:24pm


অধিকার আদায় করে নিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
শেখ হাসিনা (ফাইল ছবি)

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের নারী সমাজকে অধিকার আদায়ে যোগ্য হিসেবে গড়ে ওঠার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, ‘আমি নারীদের একটা কথাই বলবো, নারীদের অধিকার দাও, অধিকার দাও বলে চিৎকার করা, বলা আর বক্তৃতা দেওয়া, এতে কিন্তু অধিকার আদায় হয় না। অধিকার আদায় করে নিতে হবে। অধিকার আদায়ের মতো যোগ্যতা অর্জন করতে হবে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সেই যোগ্যতা আসবে শিক্ষা-দীক্ষা এবং প্রশিক্ষণের মাধ্যমে। যে কারণে দেশ স্বাধীন হবার পরই এদেশে নারী শিক্ষা বাধ্যতামূলক এবং অবৈতনিক করে দেন জাতির পিতা।’

‘সমাজকে যদি আমরা এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই তাহলে নারী পুরুষ নির্বিশেষে সকলে এক হয়ে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী সোমবার [৮ মার্চ ২০২১] আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভিডিয়ো কনফারেন্সের মাধ্যমে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় আয়োজিত বাংলাদেশ শিশু একাডেমি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত মূল অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি অংশ নেন।

সরকার ২ কোটি ৫ লাখ শিক্ষার্থীকে বৃত্তি-উপবৃত্তি দিচ্ছে যার মধ্যে বেশির ভাগই নারী উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সমাজকে যদি গড়ে তুলতে হয় তবে, নারী-পুরুষ সকলকেই শিক্ষা দিতে হবে। যে কারণে আমরা প্রতিটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রেও নারী-পুরুষ নির্বিশেষে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছি।’

শেখ হাসিনা অতীত স্মরণ করে বলেন, ’৯৬ সালে সরকারে এসে দেখেছেন কোন নারীই ডিসি, এসপির পদ পেত না, উপজেলায় কোনো ইউএনওর পদ পেতনা। তার সরকার ক্ষমতায় আসা পর থেকে এখন সকল পদে নারীরা আসীন হয়েছেন।

তিনি উদাহরণ দেন, জাতীয় সংসদের স্পিকার, সংসদ নেতা, বিরোধী দলীয় নেতা, সংসদীয় উপনেতা সবাই মহিলা। এটাই বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় অর্জন।

তিনি বলেন, অতীতে ধর্মের নাম নিয়ে বা সামাজিকতার কথা বলে নারীকে পশ্চাৎপদ করে রাখার অপচেষ্টা সমাজ থেকে দূর হয়েছে।

বিভিন্ন প্রতিকূলতাকে পাশ কাটিয়ে জীবন সংগ্রামে জয়ী নারীদের সম্মাননা দেওয়ার জন্য বিশেষ উদ্যোগ হিসেবে ‘জয়িতা অন্বেষণে বাংলাদেশ’ শীর্ষক কর্মসূচির মাধ্যমে সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখার জন্য প্রতি বছর আন্তর্জাতিক নারী দিবসে পাঁচ জন ‘জয়িতা’কে জাতীয় পর্যায়ে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

এবারেও পাঁচ জনকে জয়িতা সম্মাননায় ভূষিত করা হয়েছে। তারা হচ্ছেন: অর্থনৈতিকভাবে সফল নারীর ক্যাটাগরিতে হাছিনা বেগম নীলা, শিক্ষা ও চাকরির সাফল্যের ক্যাটাগরিতে মিফতাহুল জান্নাত, সফল জননী নারী ক্যাটাগরিতে মোসাম্মাৎ হেলেন্নেছা বেগম, নির্যাতিতা-বিজয়ী নারী ক্যাটাগরিতে বীরাঙ্গনা মুক্তিযোদ্ধা রবিজান এবং সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদানের জন্য অঞ্জনা বালা বিশ্বাস।

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বেগম ফহিলাতুননেসা ইন্দিরা বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার হিসেবে এক লাখ টাকার চেক, সম্মাননা ক্রেস্ট এবং সনদ তুলে দেন।

মহিলা ও শিশু প্রতিমন্ত্রী বেগম ফজিলাতুননেসা ইন্দিরার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে জাতিসংঘের আবাসিক প্রতিনিধি মিয়া সেপ্পো বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সায়েদুল ইসলাম স্বাগত বক্তব্য দেন। জয়িতা পদক প্রাপ্তদের পক্ষে নিজস্ব অনুভূতি ব্যক্ত করে বক্তৃতা করেন জয়িতা হাছিনা বেগম নীলা।

মন্ত্রিপরিষদ সদস্যবৃন্দ, সংসদ সদস্যবৃন্দ, পদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাবৃন্দ, বিভিন্ন কূটনৈতিক মিশন ও দূতাবাসের প্রতিনিধি এবং আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা পর্বের মাঝে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও উপভোগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

কাজী নজরুল ইসলাম এর কবিতা নারী কবিতার পংক্তি ‘বিশ্বে যা-কিছু মহান সৃষ্টি চির-কল্যাণকর, অর্ধেক তার করিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর,’ তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নারীকে আপন ভাগ্য বিধাতা হতে হবে।

নারী উন্নয়ন ও নারীর ক্ষমতায়নে তার সরকারের নেওয়া উদ্যোগের চুম্বক অংশ তুলে ধরে তিনি বলেন, সরকার পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইন ২০১০, জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতি ২০১১, নারী উন্নয়নে জাতীয় কর্মপরিকল্পনা-২০১৩-২০২৫ এবং নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ প্রণয়ন করেছে।

নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে জাতীয় কর্ম-পরিকল্পনা ২০১৩-২০২৫, পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) বিধিমালা ২০১৩, ডিএনএ আইন ২০১৪, যৌতুক নিরোধ আইন ২০১৮, বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭, বাল্যবিবাহ নিরোধ বিধিমালা ২০১৮। মাতৃত্বকালীন ছুটির মেয়াদ ছয় মাসে বাড়ানোসহ সন্তানের পরিচয়ের ক্ষেত্রে বাবার নামের পাশাপাশি মায়ের নাম বাধ্যতামূলক করার কথা উল্লেখ করেন তিনি।

অতীতে রাজশাহীতে একবার প্রমিলা ফুটবল আয়োজনে ব্যর্থ হবার কাহিনী বর্ণনা করে শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগ সরকারে আসার পরই দেশের নারীদের পুরুষের সমান সুযোগ সৃষ্টিতে করা গেছে বলেও উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারে আসার পরই সবক্ষেত্রে আমরা নারীদের একটা সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছি, যেটা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানেরই চিন্তার ফসল।

তিনি দেশের জনসংখ্যার অর্ধেক নারী সমাজ হওয়ার উল্লেখ করে বলেন, সমাজের এই অর্ধেক অংশ যদি অকেজো থাকে। সমাজটা তা হলে খুঁড়িয়ে খুড়িয়ে চলবে। এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতার ’৫৪ সালের চীন সফর নিয়ে লেখা ‘আমার দেখা নয়া চীন’ বইয়ের কয়েকটি বিশেষ লাইন উদ্ধৃতি দেন।

বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘নয়াচীনের মেয়েরা আজকাল জমিতে, ফ্যাক্টরিতে, কল-কারখানাতে, সৈন্যবাহিনীতে দলে দলে যোগদান করছে। তাদের সংখ্যা স্থানে স্থানে শতকরা ৪০ জনের ওপরে।’

বঙ্গবন্ধু  অন্য জায়গায় বলেছেন, ‘ইসলামিক ইতিহাস পড়লে জানা যায় যে, মুসলমান মেয়েরা পুরুষদের সঙ্গে যুদ্ধক্ষেত্রে যেত, অস্ত্র এগিয়ে দিত, আহতদের সেবা শুশ্রূষা করত। হযরত রসুলে করিম (সা.) এর স্ত্রী হযরত আয়েশা (রা.) নিজে বক্তৃতা করতেন। দুনিয়ায় ইসলামই নারীর অধিকার দিয়েছে।’

তিনি এ সময় দেশের স্বাধীনতা অর্জনে তার মা, মহীয়সী নারী বেগম ফজিলাতুননেছা মুজিবের জীবনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের মানুষ করার পাশাপাশি যখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব জেলে থাকতেন তখন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ থেকে শুরু করে দলের কার্যক্রম দেখা, আন্দোলন-সংগ্রাম গড়ে তোলা সবকিছু তিনিই করেছেন পর্দার আড়ালে থেকে, কখনও কোনো প্রচার তিনি চাননি। কাজেই, আমরা যে স্বাধীনতা অর্জন করেছি, তার পেছনে আমার মা বেগম ফজিলাতুননেছা মুজিবের অনেক অবদান রয়েছে।’

তার মায়ের মতামতকে জাতির পিতা সবসময়ই অত্যন্ত গুরুত্ব দিতেন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যে কোন অর্জনের পেছনে একজন নারীর যে অবদান থাকে, সেটাই এখানে সবথেকে বড় কথা।

নারীদের অবগুণ্ঠন মুক্ত হয়ে নিজের পায়ে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। সূত্র: বাসস।


বিভাগ : হ-য-ব-র-ল