কাদের মির্জাসহ ৯৭ জনের নামে আদালতে আরও একটি মামলার আবেদন

যোগফল রিপোর্ট

15 Mar, 2021 06:31pm


কাদের মির্জাসহ ৯৭ জনের নামে আদালতে আরও একটি মামলার আবেদন
ছবি : সংগৃহীত

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও বীর মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খানের ওপর হামলা ঘটনায় বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জাসহ ৯৭ জনের নামে আদালতে আরও একটি মামলার আবেদন করা হয়েছে। এছাড়াও এতে অচেনা আরও ৫০-৬০ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

সোমবার [১৫ মার্চ ২০২১] দুপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খানের স্ত্রী কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আরজুমান পারভীন রুনু বাদি হয়ে নোয়াখালী জেলার চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টের চার নম্বর আমলি আদালতে এ আবেদন করেন।

বিকালে বাদির আবেদনের শুনানি শেষে আদালত দ্রুতবিচার ট্রাইবুনালে অভিযোগের পরামর্শ দেন।

বাদির আইনজীবী হারুনুর রশিদ হাওলাদার এসব তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ‘বাদি তার আবেদনে যে অভিযোগ করেছেন তা চার নম্বর আমলি আদালতে না করে দ্রুতবিচার ট্রাইবুনালে দাখিলের পরামর্শ দেন। আগামীকাল কাদের মির্জার বিরুদ্ধে দ্রুতবিচার ট্রাইবুনালে অভিযোগ দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বাদি।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাদির লিখিত অভিযোগে আবদুল কাদের মির্জা ছাড়াও তার ভাই শাহাদাত হোসেন এবং কাদের মির্জার সন্তান মির্জা মাসরুর কাদের তাসিককে অভিযুক্ত করা হয়েছে। এতে ৯৭ জনের নাম ছাড়াও অচেনা আরও ৫০-৬০ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।’

বাদি আরজুমান পারভীন রুনু বলেন, ‘রাজনৈতিক প্রতিহিংসার জেরে কাদের মির্জা তার সমর্থকদের নিয়ে আমার স্বামী প্রবীণ রাজনীতিবিদ ও বীর মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খানের ওপর গত সোমবার হামলা চালান। এ সময় খিজির হায়াত খানকে মারধর করে তার পরিধেয় কাপড় ছিঁড়ে ফেলা হয়।’

এ বিষয়ে আবদুল কাদের মির্জা বলেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসা ও আমাকে ঘায়েল করতে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করছেন খিজির হায়াতের স্ত্রী। ঘটনার দিন কিছু মানুষ খিজির হায়াতের ওপর হামলার করতে গেলে আমি তাকে রক্ষা করি এবং রিকশায় তুলে নিরাপদে বাড়ি পাঠিয়েছি। ওই ঘটনার একটু পরেই তিনি তার পাঞ্জাবি নিজে নিজে ছিঁড়ে আমার ওপর দোষ চাপাচ্ছেন। মিজানুর রহমান বাদল ও অপরাজনীতির হোতা একরামুল করিম চৌধুরীর নির্দেশেই খিজির হায়াত খানের স্ত্রী আমার বিরুদ্ধে মামলা করতে আদলতে গেছেন। তাদের অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট।



এই বিভাগের আরও