টঙ্গীতে পুলিশ পিটালেন সরকারি হাসপাতালের ডাক্তার

মো. আনোয়ার হোসেন

16 Mar, 2021 07:01pm


টঙ্গীতে পুলিশ পিটালেন সরকারি হাসপাতালের ডাক্তার
ছবি : সংগৃহীত

টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক এক অটোরিকশা চালক ও পুলিশের এক এটিএসআই সাইফুল ইসলামকে প্রকাশ্যে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় পুলিশের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। পরে পুলিশ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের মধ্যে বিষয়টি সমঝোতা হয়েছে বলে জানা গেছে। 

মঙ্গলবার [১৬ মার্চ ২০২১] দুপুর দুইটায় টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালের ফটকে এ ঘটনা ঘটে। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দায়িত্ব পালন শেষে হাসপাতালের মূল ফটকে সামনে দিয়ে চিকিৎসক ডাক্তার মাসুদ রানা হাসপাতাল থেকে বাহিরে যাওয়ার পথে একটি ব্যাটারি চালিত অটোরিকশার সাথে তার ধাক্কা লাগে। 

এ সময় মাসুদ রানা ওই অটোরিকশা চালককে ধরে হাসপাতালের ভিতরে নিয়ে বেধড়ক পিটাতে থাকে। এই দৃশ্য দেখে ঘটনাস্থলে ডিউটিরত ট্রাফিক পুলিশের এটিএসআই সাইফুল ইসলাম এগিয়ে গিয়ে বাধা দিলে মাসুদ রানা উত্তেজিত হয়ে তাকে ধাক্কা দেয় এবং অকথ্য ভাষায় গালাগাল দিতে থাকে। 

পরে ওই পুলিশ সদস্য মাসুদকে বেত্রাঘাত করেন। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তারা হাসপাতালে ছুটে আসেন। এ সময় মাসুদ টঙ্গী পূর্ব থানার এসআই জিয়াকেও দেখে নেওয়ার হুমকি প্রদান করেন এবং পুলিশের সামনেই হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডাক্তার পারভেজ হোসেন কোন কিছু না বুঝে না জেনেই উত্তেজিত হয়ে পুলিশকে উদ্দেশ্য করে গালাগালি করেন এবং হাসপাতালের সকল কার্যক্রম বন্ধের হুমকি দেন। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা আরও জানায়, ওই হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার পারভেজ হোসেন ও মাসুদ রানা টঙ্গীর স্থানীয় বাসিন্দা হওয়ায় তারা প্রতিনিয়ত হাসপাতালে প্রভাব বিস্তার করে আসছেন। শুধু তাই নয়, ওই দুই ডাক্তার মিলে হাসপাতালে বিভিন্ন দূর্নীতির সাথে জড়িত। আউট সোর্সিং কর্মচারী এবং স্ব-ঘোষিত ওয়ার্ড মাস্টার তৌহিদুল ইসলাম হৃদয়কে ওই হাসপাতালে রহস্যজনক কারণে স্থায়ীকরণ এবং হৃদয় ছাড়া হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা ব্যাহত হচ্ছে এই কৌশল অবলম্বন করতেই বিদ্যুতের তার কেটে নিয়ে হাসপাতালের পানি ও বিদ্যুৎ সংকট সৃষ্টি করেছে বলে বিভিন্ন তথ্যসূত্রে জানা গেছে। বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্ত করলে তার সত্যতা পাওয়া যাবে বলে হাসপাতালের অধিকাংশ কর্মকর্তা কর্মচারীরা মনে করছেন । 

এব্যাপারে টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক মাসুদ রানা বলেন, আমি ডাক্তার পরিচয় দেওয়ার পরও সাইফুল ইসলাম আমার গায়ে হাত তুলে। আমি এই ঘটনার উপযুক্ত বিচার চাই।

এবিষয়ে জানতে চাইলে টঙ্গী পূর্ব থানার অফিসার ইনচার্জ জাবেদ মাসুদ বলেন, এটা ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। ঘটনাটির সমাধান করা হয়েছে।


বিভাগ : অপরাধ


এই বিভাগের আরও