গাজীপুর সদরে যুবলীগনেতা কাইয়ুম সরকারের দখল থেকে কোটি টাকার বনের জমি উদ্ধার

যোগফল প্রতিবেদক

20 Apr, 2021 09:35pm


গাজীপুর সদরে যুবলীগনেতা কাইয়ুম সরকারের দখল থেকে কোটি টাকার বনের জমি উদ্ধার
ছবি : সংগৃহীত

গাজীপুর সদর উপজেলার বারুইপাড়া থেকে ‘কাইয়ুম সরকার’ নামে এক যুবলীগ নেতার দখল থেকে কোটি টাকা মূল্যের এক একর বনভূমি উদ্ধার করেছে বন বিভাগ। উদ্ধার করা বনভূমিতে মাছের খামার গড়ে তুলেছিলেন কাইয়ুম। মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল ২০২১) সকালে মাছের খামারটি ভেকু মেশিন দিয়ে ভরাট করেছে বন বিভাগ।

ঢাকা বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের গাজীপুরের ভাওয়াল রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. মাসুদ রানার নেতৃত্বে উচ্ছেদ অভিযানে উপস্থিত ছিলেন বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) কাজল তালুকদার ও সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) শ্যামল কুমার ঘোষ।

ভাওয়াল রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. মাসুদ রানা জানান, ভবানীপুর বিটে ৪ নম্বর বারুইপাড়া মৌজার সিংড়াতলী এলাকায় সিএস ১৮ নম্বর দাগের ১০০, ১০১, ১১১ ও ১৬০ নম্বর আরএস দাগের বনভূমিতে মাটি খনন করে মাছের খামার করেন গাজীপুর মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য কাইয়ুম সরকার ও তার অনুগতরা। কাইয়ুম শ্রীপুর উপজেলার বেতজুড়ি গ্রামের বাসিন্দা হলেও টঙ্গীতে বাড়ি করে বাস করেন। তিনি রাজনীতিতে এক সাংসদের নাম ব্যবহার করেন। পরে প্রাথমিক পর্যায়ে সীমানা নির্ধারণ ব্যতীত পুকুর খনন কাজে বাধা দেন ভবানীপুর বিট কর্মকর্তা। এতে কর্ণপাত না করে তারা ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে খামারের নির্মাণ কাজ চালিয়ে যান। 

ওই সময়ে স্থানীয় আফাজ গয়রহদের নামে বনবিভাগ একটি মামলা করে।


তিনি আরও জানান, ভবানীপুর বিটে স্বল্প জনবল এবং বন দখলকারীদের উশৃঙ্খল আচরণের বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়। পরে বিভাগীয় বন কর্মকর্তার নির্দেশ এবং উপস্থিতিতে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়। এ ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। 

স্থানীয় দুই ব্যক্তি কাইয়ুমের মাছের খামার দেখভাল করতেন। অভিযানের সময় তাদের পাওয়া যায়নি।

সহকারী বন সংরক্ষক শ্যামল কুমার ঘোষ জানান, কাইয়ুম সরকার বিগত দিনে বনে ছয়টি পুকুর খনন করেন। সম্প্রতি আরও নতুন তিনটি পুকুর খনন কাজ শুরু করেন। অভিযানের আগে সার্ভেয়ার দিয়ে তার দখলে থাকা এক একর বনভূমি চিহ্নিত করা হয়। পরে উচ্ছেদের প্রথম পর্যায়ে ৫০ শতাংশ বনভূমিতে বিভিন্ন প্রজাতির চারা গাছ রোপণ করা হয়। উদ্ধার করা বনভূমির বর্তমান বাজার মূল্য অন্তত এক কোটি টাকা।

অভিযানে অন্যদের মধ্যে ঢাকা বন বিভাগের গাজীপুরের শ্রীপুর সদর বিট কর্মকর্তা সজীব কুমার মজুমদার, ভাওয়াল ও জাতীয় উদ্যান রেঞ্জের কর্মকর্তা এবং স্টাফরা উপস্থিত ছিলেন। অভিযানে জয়দেবপুর থানা পুলিশ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে দায়িত্ব পালন করে।

এ ব্যাপারে যুবলীগ নেতা কাইয়ুম সরকার গণমাধ্যমকে বলেন, বন বিভাগের অভিযানের কথা শুনেছি। আমি কখনও বন বিভাগের এক শতাংশ জমি দখল করিনি। সরকারি জমি দখলে রাখার প্রশ্নই আসে না। ওই মৌজায় আমার ১৫ বিঘার মতো জমি আছে। আমার জমির সঙ্গে বন বিভাগের জমি রয়েছে। আমার জমির সীমানা নির্ধারণের জন্য দুই বছর ধরে ঘুরছি। বন বিভাগ আমার জমি সীমানা নির্ধারণ করে তাদের কাছ থেকে অবমুক্ত করে দিচ্ছে না। 

এ ব্যাপারে স্থানীয় এক আওয়ামীলীগ নেতা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গণমাধ্যমকে বলেন, সম্প্রতি কয়েকজন গণমাধ্যমকর্মী পুকুর খননেন স্থানে এসেছিলেন। কিন্তু কোন সংবাদ প্রকাশ হয়নি। ওই এলাকায় কর্মরত কেউ দখলের সংবাদ প্রকাশের সাহস দেখাননি। তিনি আরও বলেন, আগেও অভিযুক্তের বিরুদ্ধে সরকারি সম্পদ সংক্রান্ত একটি মামলার অভিযোগ ছিল।

সরকারি সম্পত্তি দখল মুক্ত করায় এলাকাবাসী উৎফুল্ল। সম্প্রতি ওই এলাকায় আরও জমি বেদখল হয়েছে। তারা সব সরকারি সম্পত্তি দখলমুক্ত দেখতে চান।


বিভাগ : অপরাধ


এই বিভাগের আরও