‘ভারতের সঙ্গে টিকার চুক্তি কার্যত ভেঙে গেছে’

যোগফল রিপোর্ট

05 May, 2021 08:01am


‘ভারতের সঙ্গে টিকার চুক্তি কার্যত ভেঙে গেছে’
ছবি : সংগৃহীত

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, ‘করোনার টিকা সরবরাহে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের যে চুক্তি ছিল, তা কার্যত ভেঙে গেছে। কারণ ভারতের অবস্থা ভয়াবহ, তারা নিজেদের নাগরিকদের বাদ দিয়ে আমাদের টিকা সরবরাহ করবে, এটা আশা করা যায় না। তবে কয়েকটি দেশ থেকে টিকা পাওয়া যাবে’।

মঙ্গলবার [৪ মে ২০২১] জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহি কমিটির (একনেক) সভা শেষে সাংবাদিকদের মন্ত্রী এসব কথা জানান।

তিনি বলেন, ‘করোনার টিকা সরবরাহে ভারতের সঙ্গে আমাদের চুক্তি ছিল, সেটা ভেঙে গেছে ইন অ্যা সেন্স। চুক্তি থেকে আইনগতভাবে বের হওয়ার কোনো পথ নেই। আইনগত, নৈতিক সব দিক থেকেই আমাদের অবস্থান খুব স্ট্রং (শক্ত)। কিন্তু একটা জিনিস তো স্বীকার করতেই হবে, ভারতের যে অবস্থা আমরা দেখছি, তা আনন্দের বিষয় নয়। আমরা দুঃখিত। ভারতের নিজেদের নাগরিকদের অবহেলা করে বা বাদ দিয়ে আমাদের টিকা সরবরাহ করবে, আমি এটা আশা করি না।’

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘ভারতে যারা টিকা তৈরি করে, তাদের বক্তব্য ইন্টারনেটে শুনেছি। তাদের যে সক্ষমতা তা শেষ পর্যায়ে আছে। তারা এত টিকা তৈরি করতে পারছে না। সুতরাং এটা জটিল ব্যাপার।’

এম এ মান্নান বলেন, ‘আমরা ভারতের অবস্থা দেখে শিখছি। তাদের প্রতি আমাদের সমবেদনা আছে। আমরা পারলে তাদের সহায়তা করব।’

করোনায় ভারতে যে ভয়াবহ অবস্থা সেরকম কিছু বাংলাদেশে হবে না বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন মন্ত্রী।

টিকা ও অক্সিজেনের মজুত প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, কয়েকটি দেশ থেকে টিকা পাওয়া যাবে। বর্তমানে দেশে অক্সিজেনের কোনো সমস্যা নেই। আমাদের আস্থা আছে কোনো সংকট হবে না।

স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ ও ব্যয় প্রসঙ্গে বলেন, ‘স্বাস্থ্যখাতে পর্যাপ্ত বরাদ্দ আছে। বর্তমানে হয়তো কিছুটা বাস্তবায়ন কম দেখাচ্ছে। স্বাস্থ্যখাতে ব্যয় হয়েছে, হয়তো বিল এখনো পেমেন্ট হয়নি। বিল পেমেন্ট হলে বাস্তবায়ন ভালো দেখাবে’।

অনেক প্রকল্পে অধিক পরামর্শক ব্যয় প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, যেসব প্রকল্প বৈদেশিক ঋণ নির্ভর ওইসব প্রকল্পে পরামর্শক ব্যয় বেশি। কারণ ঋণ দেওয়া সংস্থার কিছু নিজস্ব নিয়ম-নীতি থাকে। মূলত এসব কারণে পরামর্শক ব্যয় বেশি থাকে। তারপরও আমরা ফিল্টারিং করে পরামর্শক ব্যয় সব সময় কমানোর চেষ্টা করি।


বিভাগ : আড়চোখ


এই বিভাগের আরও