কাপাসিয়ায় স্ট্রবেরি চাষে সফলতা দেখা দিলেও কৃষি অফিস গাছাড়া

যোগফল রিপোর্ট

07 Mar, 2020 05:52am


কাপাসিয়ায় স্ট্রবেরি চাষে সফলতা দেখা দিলেও কৃষি অফিস গাছাড়া

গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার বুক চিরে বহমান শীতলক্ষ্যার তিরে জেগে উঠা চরে স্ট্রবেরির চাষে সফলতা এসেছে। শীতপ্রধান দেশের ফল হিসেবে স্ট্রবেরির প্রচলন থাকলেও প্রান্তিক কৃষকের কল্যাণে স্ট্রবেরি এখন স্থানীয় কৃষকদের মাঝে জনপ্রিয়তা পেয়েছে। দাম ও ফলন ভালো পাওয়ায় স্থানীয় অন্য কৃষকরাও স্ট্রবেরি চাষ আগ্রহী হয়ে ওঠছেন। তবে কাপাসিয়া উপজেলা কৃষি অফিস এ সফলতা অংশীদার হতে পারেনি। 

কাপাসিয়া উপজেলাধীন সিংহশ্রী ইউনিয়নের নদী তিরবর্তী একটি গ্রাম কুড়িয়াদী। এই গ্রামের কয়েক কৃষক নদীর তিরে জেগে উঠা চরে শীতকালীন ফসলের চাষ করলেও অধিকাংশ জমিই পতিত থাকতো। কৃষিকাজে ভিন্নতা আনতে চলতি মৌসুমে পাশের শ্রীপুর উপজেলার ফুল চাষী দেলোয়ারের পরামর্শে কুড়িয়াদী গ্রামের কয়েকজন কৃষক স্ট্রবেরির চাষ শুরু করেন। এদেরই একজন তোফায়েল আহমেদ বিদ্যুৎ। স্ট্রবেরি চাষ করে তিনি ইতিমধ্যেই সফলতার সাথে স্ট্রবেরি চাষী হিসাবে পরিচিতি পেয়েছেন। নয়ানগর গ্রামের হুমায়ুন সফল হয়েছেন স্ট্রবেরি চাষে।


বিদ্যুৎ সাংবাদিকদের জানান, বর্ষাশেষে বিশেষত শীতকালে নদীর পানি নেমে গেলে তখন নদী তিরে জেগে ওঠা চরে জমে থাকা পলিমাটি থাকে যা খুব উর্বর হয়। যে ফসলের চাষ করা হয় তাতেই মেলে সফলতা। তিনি শ্রীপুরের উপজেলার দেলোয়ারের মালিকানাধীন মৌমিতা ফ্লাওয়ার প্রোডাক্টস থেকে এক হাজার স্ট্রবেরির চারা প্রতিটি ৩০টাকা দরে কিনেন। কয়েক মাস পরিচর্যা করার পর এখন ফলন পাওয়া যাচ্ছে। তিনি আরও জানান, প্রতি কেজি স্ট্রবেরি ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা করে বিক্রি করেছেন। এ পর্যন্ত তিনি দেড় লাখ টাকার স্ট্রবেরি বিক্রি করেছেন।

তার পাশাপাশি নদীর চরে স্ট্রবেরির চাষ করেছেন একই এলাকার আব্দুর রাজ্জাক প্রধান। তিনি রোপন করেছেন ৭ হাজার স্ট্রবেরির চারা। হুমায়ুন কবির নামের এক যুবক রোপন করেছেন ১৩ হাজার স্ট্রবেরির চারা।

স্ট্রবেরি চাষী হুমায়ুন কবিরের মতে, গত মৌসুমে পেপের বাগান করে শীলাবৃষ্টিতে নষ্ট হয়ে গিয়েছিল, সেখানে অনেক লোকশান হয়েছিল। তাই এবার আমরা কয়েকজন মিলে ঝুঁকি নিয়ে স্ট্রবেরি চাষ শুরু করি। আমরা নদীর পতিত চরে স্ট্রবেরি চাষে ভালো ফলন পেয়েছি। এখন আমাদের দেখাদেখি আগামী মৌসুমে অনেকেই স্ট্রবেরি চাষে আগ্রহী হচ্ছেন। আমাদের আশাকরি নদীর তিরে স্ট্রবেরি চাষ আগামীতে লাভজনক চাষে বিপ্লব ঘটতে পারে।


এ বিষয়ে কাপাসিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুমন কুমার বসাক কাছে জানতে গেলে তিনি বলেন, আমি শুনেছি সিংহশ্রীতে কিছু কৃষক স্ট্রবেরি চাষ শুরু করেছেন। তবে তারা আমাদের সাথে কোন যোগাযোগ করেনি। আমি ওই ইউনিয়নের মাঠ পর্যায়ে যিনি কাজ করেন তাকে দেখে প্রতিবেদন দিতে বলেছি।

গাজীপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মাহবুব আলম সাংবাদিকদের জানান, স্ট্রবেরিতে উচ্চমাত্রায় পুষ্টিমান বিদ্যমান। এই ফল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর পাশাপাশি রোগমুক্তিতেও সহায়তা করে। গাজীপুরে বিক্ষিপ্তভাবে স্ট্রবেরির চাষ হলেও আমরা এর পরিমাণ নির্ধারন করতে পারিনি। অনেকে শখের বশে বাসাবাড়িতে স্ট্রবেরির চাষ করলেও এখন কাপাসিয়ায় শীতলক্ষ্যা নদীর তিরে জেগে উঠা চরে বাণিজ্যিকভাবে স্ট্রবেরির চাষ করছেন। এই চাষ লাভজনক বিধায় গ্রামীণ অর্থনীতিতে অবদান রাখবে।


বিভাগ : খেতখামার